দুবাইয়ের সাথে খেলে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি প্রস্তুতি? আপনি কি মনে করেন 

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরুর প্রাক্কালে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের দল ও পাকিস্তানের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল খুব শীঘ্রই নিউজিল্যান্ডের উদ্দেশ্যে রওনা দেবে। তার আগে কোন খেলা ছিল না সাকিব আল হাসানের দলের, কেননা এবারের এশিয়া কাপে মাত্র দুইটি ম্যাচ খেলেই বাংলাদেশকে বিদায় নিতে হয়েছে।

ম্যানেজমেন্টের পরিকল্পনা ছিল আরো কিছু টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলা টি-টোয়েন্টিতে খারাপ পারফর্মেন্স করতে থাকা বাংলাদেশের খেলোয়াড়ের উন্নতির জন্য। 

শরৎ চলাকালীন সময়ে বাংলাদেশের আবহাওয়ার বিরূপ প্রতিক্রিয়ার কারণে মিরপুরে সঠিকভাবে অনুসরণ করতে পারছিলোনা বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিকল্পনা ছিল খেলোয়াড়দের বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুতি সংযুক্ত আরব আমিরাতের ক্যাম্প করার।

এক্ষেত্রে বোর্ড সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে যে বাংলাদেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে টি-টোয়েন্টি ক্যাপ করবে। এক্ষেত্রে নিজ উদ্যোগে বিসিবিকে ক্যাম্প করতে হলে খরচ করতে হতো কয়েক কোটি টাকা। তবে সংযুক্ত আরব আমিরাত ক্রিকেট টিমের আমন্ত্রণে বিসিবির বেঁচে গেল কয়েক কোটি টাকা। 

কিভাবে বাঁচল বিসিবির কোটি টাকা 

সংযুক্ত আরব আমিরাত বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলার আলোচনা করায়, বিসিবিকে নিজ খরচে কন্ডিশনিং ক্যাম্প করার প্রয়োজন হচ্ছে না।

তারা অন্যান্য বিদেশ সফরে যেভাবে যায়, ঠিক সেভাবে সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরও একটি বিদেশ সফরের মতই হয়েছে। তাই কয়েক কোটি টাকা বেঁচে গেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডর। 

এদিকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের দলের অনুশীলন চলছে মিরপুরে, তবে সাগরে সৃষ্টি হওয়া নিম্ব চাপের কারণে দেশজুড়ে সরতের মাঝখানে অনাকাঙ্ক্ষিত বৃষ্টিপাতের কারণে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে অনুশীলন।

ফ্রী ফায়ার গেম খেললে কি ক্ষতি হয়?

এই কারণে সংযুক্ত আরব আমিরাতের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় দুবাইয়ের কন্ডিশনিং ক্যাম্প করতে যে যা খরচ হতো বিসিবির তার পুরোটাই বেঁচে গেছে বিসিবির।

এদিকে বড় দলের বিপক্ষে খেলার সুযোগ লুফে নেয় আরব আমিরাতে, তাই তারা বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটি ম্যাচ খেলার প্রস্তাব দিলে সে প্রস্তাবে সায় দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডে, তাই তেমন কোন খরচ হবে না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের। 

দুবাইয়ের সাথে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে কি লাভ হবে বাংলাদেশের? 

আরব আমিরাতের খেলার সুযোগ পাওয়ায় কন্ডিশনিং ক্যাম্প করতে হচ্ছে না বলে, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কোটি টাকা বেঁচে গেছে।

অন্যথায় দুবাইয়ের কন্ডিশনিং ক্যাম্প করতে অথবা দুবাইয়ের বিপক্ষে সিরিজ আয়োজনে সব খরচ বহন করতে হত বিসিবিকে।

দুবাইয়ের মতো ছোট দলের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ হবে এমন প্রশ্নে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে ভিন্ন ভিন্ন প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে।

তবে সাকিব আল হাসানের অনুপস্থিতিতে বাংলাদেশ দলের ভাইস ক্যাপ্টেন নুরুল হাসান সোহান বলেছেন আন্তর্জাতিক ম্যাচে কোন দলের বিপক্ষে খেলা হোক না কেন সেটা আপনাকে প্রস্তুতির সুযোগ করে দেয়ার জন্য যথেষ্ট।

আরো মনে করিয়ে দেন টি-টোয়েন্টি ম্যাচে কোন দলই ছোট নয়। দল কোন পর্যায়ে খেলছে এটা মূল বিষয় নয়, কেননা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে দুজন খেলোয়াড় ভালো খেললেই একটি দল জিততে পারে। 

তাই আমাদের দুবাই কন্ডিশন এর সাথে সাথে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আমাদের প্রস্তুতিকে আরো ভাল করবেন। বর্তমান আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে আইসিসির সদস্য দেশগুলোর কে ছোট করে দেখার কোন উপায় নেই।

সকলেই ভালো খেলার জন্য মাঠে নামে, তাই আপনি কাউকে ছোট করে দেখতে পারবেন না যেদিন যারা ভালো খেলবে তারাই ম্যাচ জিতবে।

বাংলাদেশ দলের টি-টোয়েন্টি খেলায় মোমেন্টাম তৈরি করার জন্য এই ম্যাচগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন বাংলাদেশ দলের সহ-অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান।

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় রেজাল্ট দেখার নিয়ম কি?

প্রতিদিন নিত্য নতুন খবর জানতে চোখ রাখুন আমাদের ফেসবুক পেইজে।

Leave a Comment